শীতে রং-বেরংয়ের টুপি

এই বছর দেরিতে হলেও শীত পড়ে গিয়েছে। শহরের বিভিন্ন স্থানে গরম হয়ে উঠেছে গরম কাপড়ের বাজার। শাল, সোয়েটার কেনার পাশাপাশি মাথা ও কান হিমেল বাতাস থেকে রক্ষা করতে নানা রকম টুপির জনপ্রিয়তাও রয়েছে। বাজার ঘুরে দেখা গেল, রয়েছে হরেক রকমের রং-বেরংয়ের টুপি।

বিভিন্ন রকমের টুপি

কান ঢাকা টুপি বা মাঙ্কি টুপি: আস্তিনসহ টুপিগুলো এখন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। ছোটদের জন্য ভালুক, কার্টুনের টুপি, বড়দের জন্য একরঙা বা বিভিন্ন রঙের সংমিশ্রণের টুপিও পাওয়া যাচ্ছে।

মাফলার টুপি: এখন বাজারে এমন টুপিও এসেছে যার প্রান্তভাগ গলায় জড়িয়ে রাখা যাবে।

ক্যাপের মতো: এগুলো গেঞ্জি কাপড় থেকে মোটা উলেরও হয়ে থাকে। ছেলেমেয়ে সবার মাঝেই এই টুপির জনপ্রিয়তা রয়েছে।

ঝোলা টুপি: সাধারণত এইরকম টুপির পেছনের দিক একটু ঝোলানো থাকে। মেয়েদের মধ্যে এই টুপি বেশ জনপ্রিয়। রাস্তার ধুলাবালি ও শীতের আবহাওয়া থেকে অনায়াসেই চুল রক্ষা করা যায় এই টুপির জন্য।

কোথাও তাড়াহুড়ো করে যেতে হলে চুল বেঁধে এই টুপি পরলেও আধুনিকতার ছোঁয়া থাকবে পোশাকে। তবে রং ও টুপির কাপড় যাচাইয়ের ক্ষেত্রে সচেতন হতে হবে।

বাজারে রয়েছে বাহারি টুপি। এছাড়াও পুরানো ফ্যাশনের টুপির ভেতরে মোটা উলের টুপি, একসঙ্গে মুখ ও মাথা ঢাকার টুপিও আছে বাজারে।কোন টুপিতে মানাবে বেশি? এমন প্রশ্ন মাথায় ঘুরে বেড়ায়। মুখের গড়ন ও ত্বকের রংয়ের সঙ্গে মিলিয়ে  টুপি পরলে দেখতে ভালো লাগবে। শীতের টুপি পরার ক্ষেত্রে কোনো নির্দিষ্ট নিয়মাবলী নেই। তবে কিছু জিনিস মেনে চললেই সবাইকে মানানসই লাগবে।

  • চুল ছোট: যাদের চুল ছোট তারা সম্পূর্ণ চুল টুপির ভেতর রাখতে পারেন। অল্প বড় চুল হলে পাশ দিয়েও চুল বের করে রাখা যায়।
  • সামনের চুল ছোট: কপালের সামনের চুল ছোট যাদের তারা চাইলেই সেটি বের করে রাখতে পারেন। চুল বেশি এলোমেলো থাকলে অনায়াসেই তা টুপির ভেতর গুজে রাখা যাবে।

সঠিক টুপি বাছাই

শীত থেকে বাঁচতে সঠিক টুপি বাছাই করাও জরুরী। রং, মাপ ও টুপির ডিজাইনের উপর অনেক কিছু নির্ভর করে।

  • রং: এমন রং নির্বাচন করা উচিত যা সব ধরনের পোশাকের সঙ্গেই হবে মানানসই। যেমন কালো, খয়েরি, নীল রংয়ের যে কোনো টুপি মানিয়ে যাবে যে কোনো পোশাকের সঙ্গে। উৎসবমুখর পরিবেশে লাল, সাদা অথবা সবুজ রংয়ের টুপি পরা যেতে পারে। কারো উজ্জ্বল রং পছন্দ হলে হলুদ বা নিওন টুপিও বেছে নিতে পারেন।
  • মাপ: সবসময় এমন টুপি বেছে নেওয়া উচিত যা একটু ঢিলে হবে। কারণ টুপিতে ব্যবহৃত ইলাস্টিক কপালের কাছে আঁটসাঁট হয়ে থাকলে তা অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। এমনকি কপালে দাগ ও ফেলে দেয়।
  • অলঙ্করণ: সবসময় এমন টুপি বেছে নেওয়া উচিত যা পুরো শীতের কাপড়ের সঙ্গে মানানসই হবে। তবে অনেকেই চাইলে ভিন্ন ডিজাইনের টুপিও পরতে পারেন পোশাকে বৈচিত্র্য আনতে।

কোথায় পাবেন?

যাদের চুল ছোট তারা সম্পূর্ণ চুল টুপির ভেতর রাখতে পারেন। রাজধানীর নিউমার্কেট, গাউছিয়া মার্কেট, চন্দ্রিমা সুপার মার্কেট, নুরজাহান মার্কেট, বদরুদ্দোজা মার্কেট, বঙ্গবাজার, গুলিস্তানসহ অনেক জায়গাতেই পেয়ে যাবেন এমন সব রং-বেরংয়ের বাহারি শীতের টুপি।

মূল্য কত?

টুপির প্রতিটির দাম ৫০ থেকে ৩শ’ টাকার ভেতর। কাপড়ের রকমভেদের উপর টুপির দাম নির্ভর করে। গেঞ্জি কাপড়ের টুপির দাম ৫০ থেকে ১শ’ টাকা।

বাজারে চায়না ও বাংলাদেশের তৈরির টুপির বাজার বেশি লক্ষ করা গেছে। চায়না থেকে আসা টুপির দাম তুলনামুলক বেশি। বাচ্চাদের বাহারি টুপির দাম সবচেয়ে বেশি।