ত্বকের লাবণ্য ফেরাবে অ্যাভোকাডো–Click Here

পুষ্টিকর ফল অ্যাভোকাডো রূপচর্চায়ও অনন্য। এতে রয়েছে ভিটামিন এ, বি, কে, সি, বি১, বি২, বি৫, ই এবং ভিটামিন বি৬। এছাড়া এতে থাকা পটাসিয়াম, ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম, আয়রন, কপার, জিঙ্কসহ আরও বিভিন্ন পুষ্টি উপাদান প্রাকৃতিকভাবে ত্বকে নিয়ে আসে জৌলুস। যেকোনও সুপার শপেই পেয়ে যাবেন অ্যাভোকাডো।
জেনে নিন অ্যাভোকাডোর কয়েকটি ফেসপ্যাক কীভাবে তৈরি ও ব্যবহার করবেন-
অ্যাভোকাডো ও অ্যালোভেরা
২ চা চামচ অ্যাভোকাডো শাঁসের সঙ্গে ১ চা চামচ অ্যালোভেরা জেল মেশান। মিশ্রণে আধা চা চামচ ছত্রাকের গুঁড়া ও গরম পানি মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। ফেসপ্যাকটি ২০ মিনিট ত্বকে লাগিয়ে রেখে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার ব্যবহার করুন এটি। শুষ্ক ও সংবেদনশীল ত্বকের জন্য ফেসপ্যাকটি খুবই কার্যকর।
অ্যাভোকাডো ও ওটমিল
বিবর্ণ ত্বকে জৌলুস ফিরিয়ে আনবে এই ফেসপ্যাক। সামান্য ওট গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। ওট গলে গেলে ১টি অ্যাভোকাডো চটকে দিয়ে দিন। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে নেড়েচেড়ে পেস্ট তৈরি করুন। ঠাণ্ডা হলে ত্বকে লাগান ফেসপ্যাক। কিছুক্ষণ পর কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
অ্যাভোকাডো, মধু ও ডিম
২টি অ্যাভোকাডোর শাঁস চটকে ২ চা চামচ মধু মেশান। মিশ্রণে ১টি ডিম দিয়ে ফেটিয়ে নিন। কুসুম গরম পানির সাহায্যে মিহি মিশ্রণ তৈরি করুন। মুখ ও গলার ত্বকে কিছুক্ষণের জন্য লাগিয়ে রাখুন ফেসপ্যাকটি। ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। দাগ দূর করে ত্বক উজ্জ্বল করবে এই ফেসপ্যাক। পাশাপাশি বলিরেখাও দূর করবে এটি।
অ্যাভোকাডো, মধু ও দই
১টি অ্যাভোকাডো চটকে ১ চা চামচ অপরিশোধিত মধু ও দই মেশান। মিশ্রণে কয়েক ফোঁটা নারিকেল তেল ও কুসুম গরম পানি মিশিয়ে তৈরি করুন ফেসপ্যাক। ত্বকে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন ফেসপ্যাকটি। হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার হিসেবে কাজ করবে এটি।
অ্যাভোকাডো ও আমন্ড অয়েল
আমন্ড অয়েলে রয়েছে ভিটামিন যা ত্বকের পড়ে যাওয়া বয়সের ছাপ দূর করে ও উজ্জ্বল করে ত্বক। ১টি অ্যাভোকাডো চটকে ১ চা চামচ আমন্ড অয়েল ও ১ চা চামচ মধু মেশান। মিশ্রণটি ত্বলে লাগিয়ে রাখুন/ আধা ঘণ্টা পর কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন ত্বক। শুষ্ক ত্বকের জন্য এটি খুবই কার্যকরী।
অ্যাভোকাডো ও মধু
১টি অ্যাভোকাডো চটকে মধু মিশিয়ে তৈরি করুন ফেসপ্যাক। এটি প্রাণহীন ত্বকে ফিরিয়ে আনবে লাবণ্য।